ইন্ডিয়ান টুরিস্ট ভিসা করতে কি কি লাগে

ভারত বা ইন্ডিয়া বাংলাদেশের অন্যতম বন্ধু রাষ্ট্র। উন্নত চিকিৎসা, উচ্চ শিক্ষা, ব্যবসা সহ ভ্রমণের উদ্দেশ্যে ইন্ডিয়া যাওয়া যায়।

ভারতে অসংখ্য প্রাকৃতিক এবং কৃত্রিম ভাবে তৈরি পর্যটন কেন্দ্র রয়েছে। এ সকল দর্শনীয় স্থান সমগ্র বিশ্বের পর্যটকদের আকর্ষণ করে।

বাংলাদেশ থেকে প্রতিনিয়ত হাজার হাজার মানুষ ইন্ডিয়া টুরিস্ট ভিসায় যায়। বাংলাদেশি নাগরিকের জন্য ইন্ডিয়া টুরিস্ট ভিসা অত্যন্ত সহজলভ্য।

বর্তমানে বাংলাদেশে সর্বমোট ৫ টি ইন্ডিয়ান দূতাবাস রয়েছে। ইন্ডিয়ান দূতাবাস থেকে সহজে অল্প খরচে ইন্ডিয়ান টুরিস্ট ভিসা আবেদন এবং সংগ্রহ করা যায়।

ইন্ডিয়ান টুরিস্ট ভিসা করতে কি কি লাগে

বর্তমানে ইন্ডিয়ার সকল ভিসার মধ্যে টুরিস্ট ভিসা সব থেকে সহজে পাওয়া যায়। টুরিস্ট ভিসা তৈরি করতে আবেদন ফরম এর সাথে কিছু কাগজ পত্র জমা দিতে হয়।

মূলত সকল তথ্য সঠিক ভাবে বিচার বিশ্লেষণ ও যাচাই বাছাই করার জন্য এই কাগজপত্র জমা নেওয়া হয়। এক্ষেত্রে অবশ্যই নির্ভুল কাগজ পত্র জমা দিতে হবে।

  • ভারতীয় টুরিস্ট ভিসার অনলাইন আবেদন পত্র।
  • বৈধ পাসপোর্ট এবং পাসপোর্টের মেয়াদ সর্বনিম্ন ৬ মাস থাকতে হবে।
  • আবেদনকারীর সদ্যতোলা ২”×২” সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড এর ছবি।
  • ভোটার আইডি কার্ড বা অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সনদের ফটো কপি।
  • বিগত ৩ মাসের ব্যাংক স্টেটমেন্ট।
  • বর্তমান ঠিকানার প্রমাণস্বরূপ গ্যাস/পানি/বিদ্যুৎ বিলের ফটো কপি।
  • পুরাতন পাসপোর্ট এর ফটোকপি ( যদি থাকে)
  • শিক্ষার্থী হলে স্টুডেন্ট আইডি কার্ড
  • চাকরিজীবী হলে পেশার প্রমাণ হিসেবে নিয়োগকর্তার চিঠি

ইন্ডিয়ান টুরিস্ট ভিসা আবেদন করার নিয়ম

আবেদন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ইন্ডিয়ান টুরিস্ট ভিসা পাওয়া যায়। অনলাইন এবং অফলাইনে ইন্ডিয়ান টুরিস্ট ভিসার আবেদন করা যায়।

অফলাইনে ইন্ডিয়ান টুরিস্ট ভিসার আবেদন করার জন্য ইন্ডিয়ান দূতাবাসে উপস্থিত হয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করে আবেদন কার্যক্রম সম্পন্ন করতে হবে।

টুরিস্ট ভিসা আবেদন সহজ এবং দ্রুত করার জন্য অনলাইন সেবা রয়েছে। অনলাইনে আবেদনের ক্ষেত্রে প্রথমে https://www.ivacbd.com/ ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে।

অতঃপর সকল তথ্য সঠিক ভাবে প্রদান করে সাবমিট বাটনে ক্লিক করলে টুরিস্ট ভিসা প্রসেসিং শুরু হবে। ভিসা প্রসেসিং শেষে এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে।

ইন্ডিয়ান টুরিস্ট ভিসা খরচ কত?

বর্তমানে ইন্ডিয়ান টুরিস্ট ভিসা তৈরির ক্ষেত্রে শুধুমাত্র ভিসা প্রসেসিং বা আবেদন ফি বাবদ ৮০০ টাকা থেকে ৯০০ টাকা প্রদান করতে হবে।

তবে এজেন্সির সাহায্যে ভিসা তৈরির ক্ষেত্রে বিভিন্ন এজেন্সি অনুযায়ী ২ হাজার টাকা থেকে ৩,২০০ টাকা পর্যন্ত খরচ হতে পারে।

ইন্ডিয়ান টুরিস্ট ভিসা পেতে কতদিন লাগে?

ভারত সরকার টুরিস্টদের হয়রানি কমাতে ভিসা প্রসেসিংয়ের সময় অনেক কমিয়েছে। বর্তমানে ইন্ডিয়ান টুরিস্ট ভিসা পেতে সর্বনিম্ন ৭ দিন থেকে সর্বোচ্চ ১২ দিন সময় লাগে।

তবে দ্রুত ভিসা পেতে নির্দেশিত সকল কাগজপত্র জমা দিতে হবে। কেননা কাগজপত্র ভুল থাকলে ভিসা পেতে ১ মাস সময় লাগতে পারে।

ইন্ডিয়ান টুরিস্ট ভিসার মেয়াদ কত দিন?

পূর্বে ইন্ডিয়ান ট্যুরিস্ট ভিসার সাহায্যে ভ্রমণের উদ্দেশ্যে সর্বনিম্ন ৩ দিন থেকে সর্বোচ্চ ৯০ দিন অর্থাৎ ৩ মাস পর্যন্ত অবস্থান করা যেতো।

তবে বর্তমানে ভারত সরকার টুরিস্টদের সুবিধার্থে ভিসার বৃদ্ধি করেছে। বর্তমানে টুরিস্ট ভিসার মেয়াদ বৃদ্ধি করে ৩ মাস থেকে ৬ মাস করা হয়েছে।

ইন্ডিয়ান টুরিস্ট ভিসার মেয়াদ বাড়ানোর উপায়?

ভারত সরকার টুরিস্ট ভিসার মেয়াদ বৃদ্ধির প্রসেস বন্ধ করে দিয়েছে। তাই মেয়াদ উত্তীর্ণ ভিসার সাহায্যে ইন্ডিয়া ভ্রমণ করা যাবে না। এক্ষেত্রে পুনরায় ইন্ডিয়ান টুরিস্ট ভিসা তৈরি করতে হবে।

ইন্ডিয়া বাংলাদেশ কে তিন দিক থেকে ঘিরে রেখেছে। তাই খুব সহজে ইন্ডিয়া পৌঁছানো যায়। ইন্ডিয়া ভিসা তৈরির খরচ এবং ভিসা তৈরির প্রসেসিং অনেক সহজ। তবে অনেক অসাধু দালাল ও এজেন্সি ভুল তথ্য প্রদান করে ভিসা তৈরির ক্ষেত্রে অধিক অর্থ আদায় করে। তাই সকল ভিসা তৈরীর ক্ষেত্রে অসাধু দালাল ও এজেন্সি থেকে সতর্ক থাকতে হবে। ধন্যবাদ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top