ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি কত টাকা ২০২৪

বর্তমান সময়ে প্রায় সকলেরই একটি বাইক রয়েছে। এটি সখের বসেও হতে পারে আবার প্রয়োজনের কারণেও হতে পারে। তবে যে কারণেই হোক আপনি যদি নিজেই মোটরসাইকেল চালিয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনার একটি ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকা বাধ্যতামূলক। বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক রোড ও ট্রান্সপোর্ট আইনে সকল চালকগণের একটি ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে গেলে বেশ কিছু ডকুমেন্টের প্রয়োজন হয় সাথে কিছু ফি প্রদান করতে হয়। আমাদের মাঝে যে সকল ভাইয়েরা নতুন মোটরসাইকেল ক্রয় করেছে তাদেরকে অবশ্যই ড্রাইভিং লাইসেন্সটি করে নিতে হবে। কিন্তু অনেকেই নতুন হিসেবে ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি কত টাকা বা ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে কি কি লাগে সে সম্পর্কে জানে না। তাই আজকের এই পোস্ট এর মাদ্ধমে আপনাদের সাথে ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে কত টাকা লাগে সেটা আপনাদের সাথে শেয়ার করব।

ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি ২০২৪

যেহেতু যেকোনো ধরনের যানবাহন চালানোর জন্য অবশ্যই ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকা বাধ্যতামূলক তাই ইন্টারনেটে অনেকেই ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি কত টাকা তা জানতে চায়। এই আইনটি অধিকতর কঠিন করার পর যে সকল চালকগণ ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রাপ্ত ছিল না তারা অনেকেই এটি করতে ইচ্ছুক। ইতোমধ্যে আমরা জানি যে বাংলাদেশে দুই ধরনের ড্রাইভিং লাইসেন্স রয়েছে।

একটি হচ্ছে পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স আরেকটি হচ্ছে অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স। পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স মানে হচ্ছে যে সকল চালকগণ তাদের মূল ইনকাম সোর্স হিসেবে ড্রাইভিং করে থাকে তাদেরকে বুঝায়। যেমন বাস গাড়ির চালক বা ট্রাক গাড়ির চালক ইত্যাদি হতে পারে। অপরদিকে যারা শখের বসে অথবা অল্প গুরুত্বপূর্ণ কাজের উদ্দেশ্যে ছোট যানবাহন চালনা করার জন্য লাইসেন্স করে থাকে তাকে অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স বলে। যেমন মোটরসাইকেল চালানোর জন্য ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে হয় সেটি একটি ড্রাইভিং লাইসেন্স।

পূর্বে এই ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে তুলনামূলক খরচ অনেক কম হতো। কিন্তু বর্তমান সময়ে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি কর্তৃক সকল ধরনের ড্রাইভিং লাইসেন্স এর ফি বর্ধিত করা হয়েছে। বর্তমানে একজন পেশাদার চালকের জন্য পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে ২৪২৭ টাকা খরচ করতে হয়। অপরদিকে অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য তুলনামূলক খরচ কিছুটা বেশি হয়ে থাকে। বর্তমানে অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি হিসেবে ৪১৫২ টাকা আপনাকে খরচ করতে হবে।

ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে কি কি লাগে

যেহেতু বর্তমানে মোটরসাইকেল হোক বা অন্য ধরনের বড় কোন যানবাহন চালানোর জন্য হোক, অবশ্যই আপনাকে ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে হবে। কিন্তু অনেকে জানে না ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে কি কি লাগে। এজন্য আপনার সাথে ধাপে ধাপে ড্রাইভিং লাইসেন্স করার জন্য যে সকল তথ্য বা কাগজপত্র প্রয়োজন হয় তার একটি তালিকা নিচের অংশ শেয়ার করলাম।

  • নির্ধারিত ফরমে আবেদন অনলাইনে আবেদন।
  • সদ্য তোলা আবেদনকারীর ১ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি [সাইজ সর্বোচ্চ ১৫০ কেবি (৩০০ x ৩০০ পিক্সেল)]
  • রেজিষ্টার্ড ডাক্তার কর্তৃক মেডিকেল সার্টিফিকেট (সর্বোচ্চ ৬০০কে.বি)।
  • জাতীয় পরিচয়পত্রের স্ক্যান কপি (সর্বোচ্চ ৬০০কে.বি)।
  • ইউটিলিটি বিলের স্ক্যান কপি (সর্বোচ্চ ৬০০কে.বি)।
  • পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য পুলিশি তদন্ত প্রতিবেদন।
  • ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য ধার্যকৃত ফী।

মটর সাইকেল ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি ২০২৪

বর্তমানে অধিকাংশ লোকের কাছেই একটি করে বাইক রয়েছে। আবার অনেকেই ভ্রমণ করার উদ্দেশ্যে শখের বসে বাইক চালিয়ে থাকে। মূলত মোটরসাইকেল এর জন্য যে ড্রাইভিং লাইসেন্স করা হয় সেটি একটি অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স। অনেকে জানতে চায় মোটরসাইকেল ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি কত টাকা।

ইতোমধ্যে আমরা জেনেছি যে মোটরসাইকেল ড্রাইভিং লাইসেন্স হচ্ছে একটি অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স। আমরা অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে কত টাকা লাগে সে সম্পর্কেও আপনাদের সাথে জানিয়েছিলাম। বর্তমানে মোটরসাইকেল বা অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে ৪১৫২ টাকা খরচ করতে হবে। এই ফির বাহিরেও আপনাকে আবেদন বাবদ এবং ভ্যাট ট্যাক্স বাবদ আরো কিছু টাকা খরচ করা লাগতে পারে।

লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি

একটি ড্রাইভিং লাইসেন্স করার পূর্ব শর্ত হচ্ছে প্রাথমিকভাবে আবেদন করার পর আপনি যদি সফলভাবে লিখিত, মৌখিক ও ফিল্ড পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারেন তাহলে আপনাকে ফাইনাল পর্যায়ে আরো নির্দিষ্ট ফ্রি প্রদানের মাধ্যমে এই ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে পারেন। এখন বিষয় হচ্ছে লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স পেতে হলে আপনাকে কত টাকা ফি প্রদান করতে হবে।

আপনি চাইলে ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য দুইটি নির্দিষ্ট ক্যাটাগরিতে আবেদন করতে পারবেন। অনেকে জানতে চায় লার্নার ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি কত টাকা। তাদেরকে জানাতে চাই যে ১ ক্যাটাগরি-৫১৮/-টাকা ও ২ ক্যাটাগরি-৭৪৮/-টাকা অনলাইনে পরিশোধ করতে হবে।

পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি ২০২৪

বড় যানবাহন চালানোর জন্য অবশ্যই আপনাকে একটি পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে হবে। আপনি যদি একটি বড় গাড়ি অর্থাৎ বাস বা ট্রাকের চালক হয়ে থাকেন তাহলে বাধ্যতামূলক আপনাকে পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে হবে। কিন্তু অনেকেই বা নতুন যে সকল ড্রাইভার রয়েছে তারা পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে কত টাকা খরচ হয় সে সম্পর্কে জানে না।

এজন্য তারা প্রতিনিয়ত ইন্টারনেটে পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি কত টাকা তা খুজে থাকেন। পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য আপনাকে ২৪২৭ টাকা ব্যাংকে জমা করতে হবে। এছাড়াও আপনাকে নির্দিষ্ট কিছু পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। অপরদিকে আপনি যদি পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সটি নবায়ন করতে চান তাহলে আপনাকে সেম একই টাকা অর্থাৎ ২৪২৭ টাকা জমা দিতে হবে।

ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে কত টাকা লাগে

আপনার যদি একটি নিজস্ব যান বাহন থেকে থাকে কিন্তু এখন পর্যন্ত কোন লাইসেন্স না করে থাকেন তাহলে আপনি বিপদের মধ্যে আছেন। কারণ বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক কঠোর বেশি বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। যে সকল চালকগণ ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া রাস্তায় চলাচল করবে তাদেরকে পুলিশী মামলায় জড়াতে হবে।

এজন্য যাদের এখন পর্যন্ত ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই তারা জানতে চায় ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে কত টাকা লাগে। সাধারণত ড্রাইভিং লাইসেন্স দুই ধরনের হয়ে থাকে। প্রথমটি হচ্ছে পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং আরেকটি হচ্ছে অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স। আপনার যদি ছোট কোন যানবাহন থেকে থাকে অর্থাৎ মোটরসাইকেল এর জন্য অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে হবে। বর্তমানে পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে ২৪২৭ টাকা এবং অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে ৪১৫২ টাকা খরচ হয়।

ড্রাইভিং লাইসেন্স ব্যাংক জমা কত?

যেহেতু ড্রাইভিং লাইসেন্স করার কিছু শর্ত রয়েছে এবং ধাপ রয়েছে তাই ড্রাইভিং লাইসেন্স করার জন্য অবশ্যই আপনাকে ব্যাংকে একটি নির্ধারিত ফি জমা দিতে হবে। যারা নতুন এ ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে ইচ্ছুক তারা অনেকে জানতে চায় ড্রাইভিং লাইসেন্স ব্যাংক জমা কত টাকা। পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স করার জন্য আপনাকে ২৪২৭ টাকা এবং অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স করার জন্য আপনাকে ৪১৫২ টাকা ব্যাংকে জমা করতে হবে।

ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন ফি ২০২৪

প্রতিটি ড্রাইভিং লাইসেন্স এর একটি নির্দিষ্ট মেয়াদ থাকে। মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার আগে অবশ্যই চেষ্টা করবেন আপনার ড্রাইভিং লাইসেন্সটি নবায়ন করে নেওয়ার জন্য। অনেকেই আবার আলসেমির কারণে সঠিক সময়ে ড্রাইভিং লাইসেন্সটি নবায়ন করে না। কিন্তু অবশ্যই আপনাকে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই এটি নবায়ন করা উচিত। আমরা সকলেই জানি যে এই লাইসেন্স করতে হলে কিছু ধাপ এবং কিছু টাকা খরচ করতে হবে।

অনেকে জানতে চায় ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন ফি কত টাকা। অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর জন্য নির্ধারিত ফি ৪২১২ টাকা জমা দিতে হবে। কিন্তু আপনি যদি আপনার ড্রাইভিং লাইসেন্স এর মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যাওয়ার ১৫ দিনের মধ্যে এই টাকাটি প্রদান না করেন তাহলে আপনাকে প্রতি বছরের জন্য ৫১৮ টাকা জরিমানা দিতে হবে।

অপরদিকে পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য নির্ধারিত ফি ২৪২৭ টাকা জমা দিতে হবে, কিন্তু আপনি যদি মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার ১৫ দিনের মধ্যে এই টাকা পরিশোধ না করেন তাহলে আপনাকে পরের বছরের জন্য ৫১৮ টাকা জমা দানসহ পুনরায় ব্যবহারিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে উত্তীর্ণ হতে হবে।

শেষ কথা

ইতোমধ্যেই আপনার যদি একটি মোটরসাইকেল থেকে থাকে কিন্তু কোন ড্রাইভিং লাইসেন্স না করে থাকেন তাহলে অতি দ্রুত আপনার লাইসেন্সটি করে নিন। কারণ বর্তমান সময়ে সকল ড্রাইভারকেই একটি লাইসেন্স থাকা বাধ্যতামূলক। আজকের এই পোষ্টের মাধ্যমে আমি আপনার সাথে ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে কত টাকা লাগে এবং কি কি কাগজপত্র লাগে সেটি জানানোর চেষ্টা করেছিলাম। আশা করি ইতিমধ্যে আপনি এই পোষ্টের মাধ্যমে ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি কত টাকা সেটি জানতে পেরেছেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top